ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২৭ জুলাই ২০২৩
  1. ই পেপার
  2. ক্যাম্পাস
  3. খেলা
  4. চাকরি
  5. জাতীয়
  6. জীবনযাপন
  7. ধর্ম
  8. পাঠক কলাম
  9. পাবনা জেলা
  10. বাণিজ্য
  11. বাংলাদেশ
  12. বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
  13. বিনোদন
  14. বিশেষ সংবাদ
  15. বিশ্ব
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ডিসেম্বরে মাতারবাড়ি বিদ্যুৎকেন্দ্র উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

বার্তা কক্ষ
জুলাই ২৭, ২০২৩ ৩:২৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলায় মাতারবাড়ি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিটটির আগামী ডিসেম্বরে উৎপাদনে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। যা জাতীয় গ্রিডে ৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ যোগ করবে। প্রকল্পের কর্মকর্তারা আশা করছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্ল্যান্টটি উদ্বোধন করবেন।

মাতারবাড়ি বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য ৬৪,৩০০ মেট্রিকটন কয়লা বহনকারী একটি জাহাজ ২৩ জুন ইন্দোনেশিয়া থেকে এসেছে।

কক্সবাজার জেলার মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ি ও ধলঘাটা ইউনিয়নে ১,৪১৪ একর জমির উপর ১,২০০ মেগাওয়াটের বিদ্যুৎকেন্দ্রটি নির্মাণ করা হয়েছে। সাত বছর আগে কক্সবাজার উপকূলে জাপানের অর্থায়নে এই বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের পাশাপাশি জাহাজ থেকে কয়লা উত্তোলনের জন্য বন্দর অবকাঠামো ও জেটি নির্মাণের কাজও শুরু হয়।

সম্প্রতি সরেজমিনে দেখা গেছে, প্রকল্প বাস্তবায়নকারী প্রতিষ্ঠান কোল পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি বাংলাদেশ লিমিটেড (সিপিজিসিএল) এই মেগা প্রকল্পের কাজ এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। বিদ্যুৎকেন্দ্রের সঙ্গে কয়লা খালাসের জন্য জেটির কাজ প্রায় শেষ। জেটিতে জাহাজও ভিড়তে শুরু করেছে।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, প্রকল্পটি পুরো এলাকার দৃশ্যপট পাল্টে দিয়েছে।

পূর্ণ মাত্রায় বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য প্রতিদিন ১৩,১০৪ টন কয়লার প্রয়োজন হবে। এর জন্য কয়লা খালাসের জেটি ও সাইলো নির্মাণ করা হয়েছে। ৬০ দিনের জন্য প্রয়োজনীয় কয়লা বিশাল আকৃতির সাইলোগুলোতে রাখা হয়েছে। ৮০ হাজার টন ধারণক্ষমতা সম্পন্ন মাদার ভেসেল সরাসরি কয়লা জেটিতে প্রবেশ করতে পারবে। আর মাদার ভেসেল থেকে কয়লা খালাস করতে সময় লাগবে দেড় থেকে দুই দিন।

বিদ্যুৎকেন্দ্রের ২৫ বছরের আজীবন ছাই সংরক্ষণের জন্য দু’টি পৃথক অ্যাশপন্ড রাখা হয়েছে। একটির আয়তন ৯০ একর, অন্যটির আয়তন ৬০০ একর। কয়লা সংরক্ষণের জন্য ৮০ একর জমিতে কয়লা ইয়ার্ড প্রস্তুত করা হয়েছে।

২০১৪ সালের ১৬ জুন বাংলাদেশ সরকার ও জাইকার মধ্যে এ প্রকল্পের জন্য একটি ঋণ চুক্তি সই হয়। প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৫১,৮০০ কোটি টাকা। এর মধ্যে ৪৩,৯২১ কোটি টাকা জাইকা প্রকল্প সহায়তা হিসেবে এবং বাকি ৭,৯৩৩ কোটি টাকা বাংলাদেশ সরকার ও সিপিজিসিবিএলের নিজস্ব তহবিল থেকে দেওয়া হবে।প্রকল্প সূত্রে জানা যায়, ইতোমধ্যে জেটি ও ভৌত অবকাঠামোর ৯৫% কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং সার্বিক ভৌত অবকাঠামোর ৯০% কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

মাতারবাড়ি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্পের নির্বাহী পরিচালক নাজমুল হক বলেন, “আগামী ডিসেম্বরে বিদ্যুৎকেন্দ্রটির উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে আমরা উদ্বোধনের আগে এখান থেকে ৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ যোগ করতে চাই এবং তা হবে। মাতারবাড়ী কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিটটি ২০২৪ সালের জানুয়ারিতে চালু হওয়ার কথা থাকলেও আমরা আশা করছি এই ডিসেম্বরের মধ্যে পুরোপুরি চালু হয়ে যাবে।”

আগামী জুলাই মাসে দ্বিতীয় ইউনিট চালু করা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। তবে দুটি ইউনিট থেকে বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে সংযুক্ত করা হবে বলে জানান তিনি।

নির্বাহী পরিচালক উল্লেখ করেন, “পরিবেশ দূষণ রোধে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নিশ্চিত করে প্রকল্পটির কাজ চলছে। জাহাজ থেকে কয়লা খালাস করা হলেই কয়লা একবারই দেখা যাবে। এরপর কয়লা জেটি থেকে সরাসরি প্ল্যান্টে যাবে। এটি পরিবেশকে দূষিত করবে না।”

প্রকল্পের সার্বিক অবস্থা তুলে ধরে নির্বাহী পরিচালক বলেন, “আমাদের এই প্রকল্পের দুটি অংশ রয়েছে, যার মধ্যে একটি বিদ্যুৎকেন্দ্র, অন্যটি বন্দর।”

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ শাহীন ইমরান সাংবাদিকদের বলেন, “মাতারবাড়ী কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার প্রকল্প।”

দৈনিক এরোমনি প্রতিদিন ডটকম তথ্য মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধন প্রক্রিয়াধীন অনলাইন নিউজ পোর্টাল