ঢাকাসোমবার , ২৯ জানুয়ারি ২০২৪
  1. ই পেপার
  2. ক্যাম্পাস
  3. খেলা
  4. চাকরি
  5. জাতীয়
  6. জীবনযাপন
  7. ধর্ম
  8. পাঠক কলাম
  9. পাবনা জেলা
  10. বাণিজ্য
  11. বাংলাদেশ
  12. বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
  13. বিনোদন
  14. বিশেষ সংবাদ
  15. বিশ্ব
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় মধু সংগ্রহে ব্যস্ত মৌচাষিরা

বার্তা কক্ষ
জানুয়ারি ২৯, ২০২৪ ১২:২৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ভাঙ্গুড়া  প্রতিনিধি :  পাবনার ভাঙ্গুড়া  উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সরিষা ক্ষেত থেকে বাণিজ্যিক ভাবে মধু সংগ্রহে ব্যস্ত সময় পার করছে মৌচাষিরা। বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এসে সরিষা ক্ষেতের পাশে মৌমাছির বাক্স বসিয়ে মধু সংগ্রহ করছেন। এ মৌসুমে প্রায় ১৫ থেকে ২০ লক্ষ  টাকার মধু সংগ্রহ হবে বলে আশা করছেন মৌচাষিরা।
মৌচাষিরা এরোমনি প্রতিদিন পত্রিকা কে জানায়, প্রতি বছর ভাঙ্গুড়া উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলের সরিষার ক্ষেত থেকে প্রায় ১৫ থেকে ২০ লক্ষ  টাকার মধু সংগ্রহ করা হয়। প্রতি বছরের মতো এবারও রেলবাজার,সুজানগর, নাটোরসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মৌচাষিরা এসে মধু সংগ্রহের জন্য সরিষা ক্ষেতের পাশে হাজার হাজার মৌমাছির বাক্স বসিয়ে দিন-রাত মধু সংগ্রহ করছে। প্রতিবছর ডিসেম্বর থেকেই মধু সংগ্রহের কাজ শুরু করে মৌচাষিরা,প্রায় ৫ মাস ধরে মধু সংগ্রহ করার পর বাড়ি ফেরেন মৌচাষিরা।
সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের বিভিন্নঞ্চলের দিগন্ত জোরা মাঠ হলুদের সমারোহে ভরে গেছে। সরিষা ক্ষেতের বিভিন্ন স্থানে বসানো হয়েছে সারিবদ্ধ ভাবে মৌমাছির বাক্স। মৌচাষিরা জানান, লাখলাখ মৌমাছি সরিষার ফুল থেকে মধু সংগ্রহ করছে। প্রতিটি মৌমাছির বাক্সে প্রায় ১৮, থেকে ২৫ হাজার কর্মী মৌমাছি ও একটি করে রানী মাছি থাকে। রানী মাছি ডিম দেয়, সারাদিন মধু সংগ্রহকারী মৌমাছি গুলো সরিষার ফুলের মধু সংগ্রহে ব্যস্ত থাকে। প্রতিটি মৌমাছির বাক্স থেকে আট-দশ দিনপরপর ৬-থেকে ৮ কেজি মধু সংগ্রহ হয়।
এ উপজেলায় এসে মধু সংগ্রহকারি রেলবাজারের মো:মিজানুর ইসলাম বলেন,ডিসেম্বর থেকে শুরু করে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সরিষার ফুলের মধু সংগ্রহ করা হয়।এরপরে ধুনে,ও লিচু ফুলের মধু সংগ্রহ করা হয়। বছরের পাঁচ মাস তারা মধু সংগ্রহ করে, অন্য সাত মাস মৌমাছি নিজ খরচে পালন করে। তিনি দুই জন কর্মচারী ও ১২৫টি মৌমাছির বাক্স নিয়ে ভাঙ্গুড়া উপজেলার কুইডাঙ্গা গ্রামের সরিষা ক্ষেতের মাঠে এসেছেন। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় গত বছরের তুলনায় এবছর অনেক বেশি মধু সংগ্রহ হচ্ছে। বর্তমানে তারা মধু বিক্রি করছেন ৪০০ টাকা কেজি দরে।
উপজেলায় এ বছর কত হেক্টর জমিতে সরিষা আবাদ করা হয়েছে জানার জন্য উপজেলা কৃষি অফিসার মোছা:শারমিন সুলতানা কে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

দৈনিক এরোমনি প্রতিদিন ডটকম তথ্য মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধন প্রক্রিয়াধীন অনলাইন নিউজ পোর্টাল