ঢাকামঙ্গলবার , ১১ জুলাই ২০২৩
  1. ই পেপার
  2. ক্যাম্পাস
  3. খেলা
  4. চাকরি
  5. জাতীয়
  6. জীবনযাপন
  7. ধর্ম
  8. পাঠক কলাম
  9. পাবনা জেলা
  10. বাণিজ্য
  11. বাংলাদেশ
  12. বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
  13. বিনোদন
  14. বিশেষ সংবাদ
  15. বিশ্ব
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সড়কে ড্রেন নির্মান কাজের বেরিয়ে থাকা রড এখন মরণফাঁদ, ঝুঁকি নিয়ে চলাচল

বার্তা কক্ষ
জুলাই ১১, ২০২৩ ২:৪৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ফারুক হোসেন টুটুল  (ঈশ্বরদী প্রতিনিধি) :
ঈশ্বরদী থেকে সাঁড়া ইউনিয়নের আরামবাড়িয়া পর্যন্ত  আট কিলোমিটার সড়ক সম্প্রসারন ও সংস্কার কাজ চলছে। এছাড়াও  আলহাজ্ব মোড় থেকে রেলগেট পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার সড়কের দুই পাশে ড্রেন নির্মানের কাজও চলমান রয়েছে। তবে চলমান এ ড্রেন নির্মানের কাজ পোষ্ট অফিস মোড় পর্যন্ত এসে থেমে গেছে। এদিকে শহরের মুল ফটক পোষ্ট অফিস মোড়ে সড়কের পাশে অর্ধ-নির্মিত ড্রেনের বেরিয়ে থাকা রড পরিনত হয়েছে মরণফাঁদে। রাস্তা খুড়ে মাটির স্তুপে উঁচা হয়ে নির্মিত ড্রেনের রডের মাথা ছড়িয়ে রয়েছে চারপাশে, নেই কোন সতর্ক সংকেত। এতে অবাধেই ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহন চালক ও পথচারীরা। হাসপাতালে যাওয়া আসা করতে পোহাতে হচ্ছে দুর্ভোগ। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের এমন উদাসীনতায় ঘটতে পারে বড় দুর্ঘটনা এমনই সংহতি প্রকাশ করছেন স্থানীয়রা।পাবনা সড়ক ও জনপথ কার্যালয় সুত্রে জানা গেছে, ঈশ্বরদী আলহাজ্ব মোড় থেকে আরামবাড়িয়া পর্যন্ত  আট কিলোমিটার সড়ক সংস্কার ও আলহাজ্ব মোড় থেকে রেলগেট পর্যন্ত ড্রেন নির্মানের কাজ চলছে। এই কাজের ব্যায় ধরা হয়েছে ৬০ কোটি ৩০ লাখ টাকা। ২০২২ সালের ৪ মে কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের পরেও এক বছর পার হয়ে গেলেও ৬০ থেকে ৬৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। গড়িমসি কাজেও সড়কের দুই পাশে অর্ধ-নির্মিত এ ড্রেন নানা কারন দেখিয়ে  করা হয়েছে আঁকাবাকা, এতে সড়ক প্রসস্তকরনও করা হয়েছে ছোট। পোষ্ট অফিস মোড় মেইন সড়কের উপরই ড্রেনের রড  বেরিয়ে আছে। সড়কে ড্রেনের স্লাব নির্মাণের ফলে মাঠি খুঁড়ে উঁচু উঁচু টিলার মতো করে রাখা হয়েছে। ফলে সেখানে তৈরি হয়েছে মানুষের সৃষ্টি মরনফাঁদ। উপজেলার আলোবাগ এলাকার বাসিন্দা সাইয়াফ আহমেদ বলেন, ঈশ্বরদী উপজেলার একটি মুল ফটক পোষ্ট অফিস মোড়। আর সেই মোড়ের উপরে ড্রেনের নির্মান কাজ বন্ধ করে রেখে যত্রতত্র অবস্থায় ফেলে রেখেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। নির্মিত ড্রেনের বেরিয়ে থাকা রডের মাথা ছড়িয়ে রয়েছে চারপাশে যা অত্যন্ত ঝুকিপূর্ণ। এমন ঝুকিপূর্ণ জায়গা দিয়ে চলাচল নিষিদ্ধ করে তারা কোন সতর্ক সংকেতও দেইনি। এতে ছোট-বড় সব যানবহন ও পথচারীরা ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করছে। ফলে মেইন সড়ক জুড়ে যানযট সৃষ্টি হচ্ছে। যে কোন সময় এখানে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। রিকশাচালক আব্দুর রাজ্জাক বলেন, অনেকদিন যাবত এখানে ড্রেন  নির্মান কাজ থেমে রয়েছে।  এই পোষ্ট অফিস মোড় দিয়ে সব জায়গায় যেতে সুবিধা হয়। আর এই সুবিধাজনক জায়গা উপজেলার মুল ফটকে নির্মান কাজের বেরিয়ে থাকা রডের মাথাগুলো ছড়িয়ে রয়েছে। এতে চলাচল কিছু টা ঝুকিপূর্ণ হলেও এদিক দিয়েই চলতে হচ্ছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান হয় এখানে কাজ শেষ করে ঠিক-ঠাক করে দিক আর না হয় সতর্ক সংকেত দিয়ে অর্ধ নির্মিত ড্রেনের উপর দিয়ে চলাচল নিষিদ্ধ করুক। প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার শঙ্কা নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে আমাদের। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এ্যাম্বুলেন্স চালক রবিউল ইসলাম বলেন, হাসপাতাল থেকে দ্রুততম সময়ে যাওয়ার সহজ রাস্তা পোষ্ট অফিস মোড়। সেখানে অর্ধ-নির্মিত ড্রেনের কাজ থেমে রয়েছে এবং ড্রেনে ব্যবহৃত বড় বড় রডের মাথা আঁকাবাঁকা হয়ে ছড়িয়ে আছে যা অত্যন্ত ঝুকিপূর্ণ। শুধু তাই নয় সেখানে মাটির স্তুপে উঁচু হয়ে  থাকার কারনে ওদিক দিয়ে পার হওয়ার সময় ঝাঁকি লেগে পড়ে গিয়ে রডের আঘাতে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় দুর্ঘটনা। আমরা রোগীদের নিয়ে পোষ্ট অফিস মোড় পার হতে পারছিনা ফলে এক কিলোমিটার রাস্তা পাড়ি দিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে। নির্মানাধীন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের প্রকল্প পরিচালক মোঃ রোকনুজ্জামান বলেন, পোষ্ট অফিস মোড় ড্রেনের রড বেরিয়ে এমন ঝুকিপূর্ণ হয়ে আছে তা আমার জানা নাই তবে আমি খোঁজ নিয়ে সে রড গুলো কেটে সতর্ক সংকেত দেওয়ার ব্যবস্থা করবো। ঈশ্বরদী পৌরসভার মেয়র ইছাহক আলী মালিথা বলেন, ঈশ্বরদী-বানেশ্বর রোড প্রশস্তকরন ও ড্রেন নির্মানের কাজ চলমান রয়েছে। সকলকে একটু সচেতনতার সাথেই চলতে হবে। আর পোষ্ট অফিস মোড়ে ড্রেনের রড বেরিয়ে এমন ঝুকিপূর্ণ হয়ে আছে সেটা আমার জানা ছিলনা। আমি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে বলবো
সেখানে সতর্ক সংকেত দিয়ে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে। তিনি এ বিষয়ে সাংবাদিকদের সংবাদ প্রকাশ না  করার অনুরোধও জানান।

দৈনিক এরোমনি প্রতিদিন ডটকম তথ্য মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধন প্রক্রিয়াধীন অনলাইন নিউজ পোর্টাল