ঢাকাশনিবার , ৬ জানুয়ারি ২০২৪
  1. ই পেপার
  2. ক্যাম্পাস
  3. খেলা
  4. চাকরি
  5. জাতীয়
  6. জীবনযাপন
  7. ধর্ম
  8. পাঠক কলাম
  9. পাবনা জেলা
  10. বাণিজ্য
  11. বাংলাদেশ
  12. বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
  13. বিনোদন
  14. বিশেষ সংবাদ
  15. বিশ্ব
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রাজশাহীতে সরকারী জমিসহ ব্যাক্তি মালিকানা জমি দখলে মরিয়া ল্যান্ড মাফিয়া সেই ডা: নুরুল

বার্তা কক্ষ
জানুয়ারি ৬, ২০২৪ ১২:৫৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রাজশাহী প্রতিনিধি , নূরুন নবী : রাজশাহী মহানগরীতে দূর্নীতিবাজ ডাক্তারসহ অসংখ্যা দুর্নীতির কর্মকাণ্ডে লিপ্ত এমন ডাক্তারের সন্ধান পাওয়া গেছে। কিন্তু এবার সরকারী অধিগ্রহণকৃত ( একোয়ার ) সম্পত্তি দখল করে ব্যাক্তি মালিকানাধীন সম্পত্তিও দখল করেছে এমন ভূমিদস্যু ডাক্তারেরও সন্ধান মিলেছে । ঐ ডাক্তারের নাম ডা: নুরুল। তিনি চক্ষু বিশেষজ্ঞ। প্রাথমিকভাবে অনুসন্ধানে ডাক্তারের বিরুদ্ধে ব্যাক্তি মালিকানা জমি জালিয়াতির মাধ্যমে দখলের অভিযোগ আনেন রাজশাহী মহানগরীর লক্ষিপুরের হ্বাজী আবু বকরের একমাত্র সন্তান মাফিজুল ইসলাম মুন্না। কিন্তু গভীর অনুসন্ধানে প্রমানিত হয়েছে চক্ষু ডাক্তার নুরুল শুধু ব্যাক্তি মালিকানার জমি দখল করে ক্ষান্ত হননি বরং তিনি ১৯৬০-১৯৬১ সালের সরকারী অধিগ্রহণকৃত ( একোয়ার ) সম্পত্তি দখল করে বসে আছেন। উক্ত জমিটি রাজশাহী বক্ষব্যাধী হাসপাতালের বিপরীতে।

সরেজমিন রাজশাহী আদালতে ও রাজশাহী বোয়ালিয়া এসিল্যান্ড অফিসের পর্যালোচলা ও নথি অনুযায়ী – রাজশাহী বক্ষব্যাধী হাসপাতালের বিপরীতে বর্তমান কবর খনন কমিটির পাশে ১৯৬১ সালে গরিমন বেওয়ার কাছ থেকে সরকার জমি অধিগ্রহণ করে। যাহার কেস নং এল.এ – ১৫৮/৬০-৬১। কিন্তু পরবর্তীতে গরিমন বেওয়ার ঐ অধিগ্রনের জমি অতিরিক্ত টাকা দাবি করেন তিনি ১৯৬১ সালে সরকারের কাছ থেকে ওই টাকা গ্রহণ করেন ( সংবাদে ১৯৬১ সালের অধিগ্রহনের কাগজ সংযুক্ত)। পরবর্তীতে দেশ স্বাধীনের পরেও অর্থাৎ ১৯৭১ সালের পরেও ওই জমির মালিক গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ছিল এবং এখন পর্যন্ত আছে। এরপরে ২০২১ সালে গরিমন বেওয়ার কয়েকজন ওয়ারিশ ৪টি জাল দলিল বের করে। যার ক্রমিক নং যথাক্রমে (১) দলিল নং – ১১৮২০-১২০-২১৬-২১৮ (২)দলিল নং – ১৭০৯/২৮/০২/২০২১ ইং (৩) ৫৮৬১/৫৮৩৬ ২০/০৯/২০২১ ইং (৪) দলিল নং ২৮০৫ ০৪/০৪/২০২১ ।

 

পরবর্তীতে ডা: নুরুল হ্বাজী আবু বকরের জায়গায় জবর দখল করে কাজ করতে গেলে হ্বাজী আবু বকরের একমাত্র সন্তান মফিজুল ইসলাম মুন্না বাধা দেন। ঐ সময় ডা: নুরুল মফিজুল ইসলাম মুন্নার বিরুদ্ধে মামলা করলে আদালত সেই মামলা বাতিল করে দেয় এবং মফিজুল ইসলাম মুন্নাকে ডা: নুরুলের বিরুদ্ধে মামলা করার আদেশ দেয়। যার মামলা নং পরবর্তী সেই মামলায় আদালত ডা: নুরুলের নির্মান কাজ বন্ধ করার জন্য ১৫ দিনের আদেশ দেয়। কিন্তু আদালতের এই ১৫ দিনের আদেশ অমান্য করলে আদালত পুনরায় ২১/১১/২০২৩ ইং তারিখে স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা দেয়। যার মামলা নং – ৩০৩/২২।

এদিকে সরেজমিন অনুসন্ধানে জানা যায়, ডা: নুরুল প্রকৃত তথ্য গোপন করে তার সহসঙ্গী হিসেবে ডাক্তার শফিউল্লাহ, ডাক্তার মোজাম্মেল, ডাক্তার সুব্রতসহ মোট ১৪ জন ডাক্তারকে নিয়ে সরকারী অধিগ্রহণের জমিসহ হ্বাজী আবু বকরের জমিতে রাতারাতি কাজ করে চলেছেন।

এদিকে স্থানীয় বাসিন্দা আমিনুল মাস্টার জানান রাজশাহী মহানগরীর ভেতরে সরকারী অধিগ্রহণের জমি একজন ডাক্তার সবাইকে ম্যানেজ করে রাজশাহী জেলা প্রশাসনের নাকের ডগায় কিভাবে নির্মান কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন তা এখন বড় প্রশ্ন।

রাজশাহী বক্ষব্যাধী হাসপাতালের পাশের বাসিন্দা ও সাবেক সহকারী ভূমি কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন জানান – ডা: নুরুল গ্রুপ এখন রাজশাহীতে দুর্ধর্ষ। তারা জালিয়াতির মাধ্যমে সরকারী অধিগ্রহণের জমিসহ ব্যাক্তি মালিকানার জমি কিভাবে রাতারাতি দখল করে নির্মান কাজ করছে তা দেখে আমি বিস্মিত।

অনুসন্ধানে আরোও জানা যায়, রাজশাহী ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালের চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডা: নুরুল ইসলামের বিরুদ্ধে এর আগেও স্থানীয়, জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় বিভিন্ন সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। তবুও থেমে থাকেনি ভূমিদস্যুতার দৌরাত্ম।

দৈনিক এরোমনি প্রতিদিন ডটকম তথ্য মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধন প্রক্রিয়াধীন অনলাইন নিউজ পোর্টাল